Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

Login
ইউনিজয়
ফনেটিক
English

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

print
আপডেট : ০৭-২৮-২০১৭

আবারো ফেনীর ৩ উপজেলা প্লাবিত, চরম দুর্ভোগ

ওমর ফারুক


আবারো ফেনীর ৩ উপজেলা প্লাবিত, চরম দুর্ভোগ

ফেনী, ২৮ জুলাই-  বন্যার পানি না শুকাতেই আবারো প্লাবিত হয়েছে ফেনীর ফুলগাজী, দাগনভূঞা ও সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম। গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে মুহুরী নদীর পানি বেড়ে গেলে ফুলগাজীর বিভিন্ন ভাঙন দিয়ে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে। এতে পূর্বের বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হলেও বাড়িঘর পুনরায় প্লাবিত হয়। 

ফুলগাজীতে জেলা প্রশাসন,উপজেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা ত্রাণ বিতরণ করলেও তা ছিল প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

এদিকে বন্যা দুর্গত এলাকায় বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়া দুর্গত এলাকার লোকেরা ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এ সব এলাকায় বিশদ্ধ পানি, খাওয়ার স্যালাইন ও ওষুধপত্র সরবরাহে কোন সংস্থা এগিয়ে আসেনি। 

এদিকে জনপ্রতিনিধি ও জেলা প্রশাসনের কাছে ফুলগাজীর বন্যাপীড়িত মানুষের দাবি ‘চিড়া মুড়ি চাই না, মুহুরী নদীর টেকসই ও দুর্নীতিমুক্ত বেড়িবাঁধ চাই।’

এলাকাবাসীর অভিযোগ মুহুরী, কহুয়া আর সিলোনীয়া নদী পাড়ের মানুষ পাউবো আর রাজনীতিবিদদের শোষণের হাতিয়ার। প্রতিবার বেড়িবাঁধ ভেঙে গেলে তা বাঁধার নামে কোটি টাকা বাজেট হয়। ফলে পাউবো কর্মকর্তাদের যোগসাজশে রাজনৈতিক নেতা আর ঠিকাদারদের পকেট ভারি হয়। সরকার যায়, সরকার আসে। কিন্তু মুহুরী,কহুয়া আর সিলোনীয়া পাড়ের মানুষের ভাগ্যের কোন পরির্তন হয় না। ক্ষতিগ্রস্তরা জানায় প্রতিবার বন্যায় তাদের কোটি কোটি টাকার ফসলহানির পাশাপাশি শাক সবজির বাগান এবং শত শত পুকুরের মাছ ভেসে যায়। ফলে নদীপাড়ের মানুষ চায় টেকসই বাঁধ। 

এদিকে ২য় বারের মতো টানা বর্ষণ ও ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার ১৫ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ছোট ফেনী নদী ও কাটাখালির নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে নতুন করে গ্রামগুলো প্লাবিত হয়। এছাড়া ফেনীর সোনাগাজীতে বেড়িবাঁধের বাইরে ঘর-বাড়ি ছোট ফেনী নদীর জোয়ারের পানিতে ডুবে গেছে। 

দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম ভূঞা জানান, সিন্দুরপর ইউনিয়নের সিকান্দরপুর, কৈখালী, শরিফপুর, গৌতমখালী, রাজাপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামসহ ১৫টি গ্রামে পানি উঠেছে। ওই গ্রামের বাসিন্দারা আশ্রয় কেন্দ্রে এসে উঠেছে। সিন্দুরপুর ইউনিয়নের শরিফপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়া মানুষজন মানবেতর জীবন যাপন করছে। অস্থায়ী চুলায় রান্না করতে গিয়ে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। 

আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা বিবি কুলসুম জানান, খাওয়া, টয়লেটসহ নানাবিধ সমস্যায় দিন কাটাচ্ছে তারা। একটি রুমের মধ্যে নারী পুরুষ মিলে গাদাগাদি করে থাকতে হচ্ছে। বিবাহ উপযুক্ত বহু মেয়েকে নিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে উঠায় সেখানে বিব্রতবোধ করছেন তারা।

এদিকে বন্যায় এলাকার সকল টিউবওয়েল পানিতে ডুবে গেছে। কয়েক কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে পানি আনতে দেখা গেছে গ্রামের মেয়েদের। সিন্দুরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী সোনিয়া আক্তার ও ফারজানা আক্তার কোমর সমান পানি পথ পাড়ি দিয়ে বিশুদ্ধ পানি আনতে দেখা গেছে।

শরীফপুর গ্রামের বাসিন্দা আবদুর রহমান জানান, ছোট ফেনী নদীর বিভিন্ন অংশে একটি মহল মাছ ধরার জন্য বাঁধ দিয়ে রাখায় পানি সরবরাহ হতে পারছেনা। যার ফলে মানুষের বাড়ি-ঘরে পানি উঠতে দেখা গেছে।

কৈখালী গ্রামের বাসিন্দা ফজলুল হক জানান, এক রাতে ৫ লাখ টাকার মাছ বন্যায় ভেসে গেছে। এছাড়া এলাকার শত শত পুকুরের কয়েক কোটি টাকার মাছ শুধু মাত্র নদীতে বাঁধের কারণে ভেসে গেছে। 

দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন ও ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবদীন মামুন বলেন, ‘বন্যার্তদের জন্য প্রয়োজনীয় শুকনো খাবার প্রস্তুত আছে। গত দুইদিন ধরে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে শুকনো খাবার ও চাল দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে দুই টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।’

সিন্দুরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুন নবী জানান, তার ইউনিয়নে প্রায় সবক’টি গ্রাম পানিতে ডুবে গেছে। এখানে ২০ হাজার মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে এসে উঠেছে।

এদিকে ফেনী সদর উপজেলার শর্শদী ইউনিয়নের ৪টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে বলে জানা গেছে। 

সদর নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মামুন জানান, শর্শদী ইউনিয়নের আবুপুরসহ চার গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছে। তবে এখনো ঘর-বাড়িতে পানি উঠেনি। রাস্তা-ঘাট ও বাড়ির উঠোনে পানি উঠেছে। 

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. কোহিনুর আলম জানিয়েছেন, উজানের পানি নেমে আসায় দাগনভূঞা ও ফেনী সদর উপজেলার কিছু এলাকায় নতুন করে পানি উঠেছে। এছাড়া সোনাগাজী উপজেলায় বেডিবাঁধের বাইরে জোয়ারের পানি মানুষের বাড়ি ঘরে উঠেছে। তবে এ পানি বেশিক্ষণ স্থায়ী হবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এমএ/ ০৭:০৯/ ২৮ জুলাই

ফেনী

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে