Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০২০ , ২২ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.8/5 (24 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)


আপডেট : ০৪-১২-২০১৩

ভাস্কর্য তৈরির শিশু কারিগর!


	ভাস্কর্য তৈরির শিশু কারিগর!

যশোর, ১২ এপ্রিল- মাত্র ৭ বছর বয়সেই কোথাও ভাস্কর্য দেখলেই চোখ আটকে যেতো তার। আর তখন থেকেই মনের মধ্যে জেঁকে বসে ভাস্কর্য তৈরির ইচ্ছা। কিন্তু এই বয়সে ছোট অদক্ষ হাতে কীভাবে সেটি সম্ভব!

তারপরও মাটি দিয়ে বিভিন্ন ভস্কর্য তৈরির চেষ্টা চলে নিরন্তর। ছোট্ট কোমল হাতের ছোঁয়ায় মাটির ভাস্কর্য যেন জীবন্ত হয়ে ওঠে!

মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে সেই ছোট্ট অদক্ষ হাত আজ পরিপক্ক দক্ষ হাতে পরিণত হয়েছে। আজ আর থেমে থেমে-কেঁপে কেঁপে হাত চালাতে হয় না। এখন ভাস্কর্য তৈরির সবকিছুই যেন রপ্ত করে ফেলেছে সে। হয়ে  উঠেছে পাক্কা কারিগর।

তুর্যর বয়স এখন ১৩ বছর। পুরো নাম পল্লব সিংহ তুর্য। সপ্তম শ্রেণীতে যশোর জিলা স্কুলে পড়ে। বাবা পলাশ সিংহ দর্জির কাজ করেন। মা গৃহিনী। থাকেন শহরের ষষ্ঠীতলাপাড়া এলাকার ভাড়া বাড়িতে।

বাবার ইচ্ছা তুর্যকে বড় ভাস্কর হিসেবে গড়ে তোলা। কিন্তু দর্জির কাজ করে যে টাকা আয় হয় তাতে সংসারের ঘানি টানতেই শেষ। এরপর কীভাবে ছেলের প্রতিভা বিকাশে অর্থ ব্যয় করবেন-এ নিয়ে বড় বেশি চিন্তিত তিনি।  

তুর্য এরইমধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, স্বামী বিবেকানন্দ, মাইকেল মধুসূদন দত্ত, মাদার তেরেসা, ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি, বাংলাদেশের প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার ভাস্কর্য তৈরি করেছেন। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা, মা শিশুসহ নানা ধরনের ভাস্কর্য তৈরি করেছে সে।

তুর্যদের বাড়ি যেন ভাস্কর্যের যাদুঘর। বাড়িতে ঢুকেই এসব মনোমুগ্ধকর শিল্পকর্ম দেখে সবারই চোখ জুড়িয়ে যাবে। অবাক হতেই হবে এ শিশু শিল্পীর শিল্পকর্ম দেখে। ভাস্কর্যগুলো দেখে মনে হবে- এসব যেন জীবন্ত মূর্তি।
খ্যাতিমান ব্যক্তি ছাড়াও বিভিন্ন ভাস্কর্যে গোটা আঙিনা ভরে ফেলেছে সে। দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করে নানা রঙ আর বৈচিত্র্যের সমাহার ঘটিয়ে তুর্য নির্মাণ করে চলেছে এসব ভাস্কর্য।

সর্বশেষ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭ ফুট উচ্চতার এক বিশাল ভাস্কর্য তৈরি করে নজর কেড়েছে তুর্য। সবমিলিয়ে প্রায় ৭০টি ভাস্কর্য নির্মাণ করেছে ক্ষুদে এ ভাস্কর।

শিশু তুর্য জানায়, ৭ বছর বয়স থেকেই তার ভাস্কর্য তৈরির ওপর ঝোঁক সৃষ্টি হয়। এ সময় মাটি দিয়ে মন্দিরসহ বিভিন্ন ভাস্কর্য তৈরি শুরু করে সে। বিভিন্ন ধরনের ছবি দেখে তা ভাস্কর্যের আদলে রূপ দেওয়ার চেষ্টা শুরু করে।

এরই একপর্যায়ে কিশোরগঞ্জের প্রতিষ্ঠিত ভাস্কর্য শিল্পী সুসেন ও শ্যামলের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। কীভাবে ভাস্কর্য তৈরি করতে হয় সে বিষয়ে কিছু ধারণাও পায়।

এরপর থেকেই শুরু হয় ইচ্ছাকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার সংগ্রাম। একে একে ৭০টি ভাস্কর্য তৈরি করেছে সে। সর্বশেষ গত ৩ মাসের পরিশ্রমে তুর্য তৈরি করেছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭ ফুট উচ্চতার এক ভাস্কর্য।

এর আগে রাত জেগে মাত্র ৫ ঘণ্টায় ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জির ভাস্কর্য তৈরি করে পল্লব সিংহ তুর্য। ভারতের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তিটি পাশের জেলা নড়াইলে আসবেন- এমন সংবাদ শুনেই ভাস্কর্যটি তৈরি করে সে। পরে সেটি বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূতের কাছে হস্তান্তরও করা হয়। তুর্য শুধু একজন ভাস্করই নয়, সে ভালো গান করে এবং ছবি আঁকে।

শিশু তুর্য আরও জানায়, ভাস্কর্য তৈরি করতেই তার ভালো লাগে। তাই পড়াশোনার পর বাকি যে সময়টুকু পায় তার সবটুকুই এর পেছনে ব্যয় করে। বড় হয়ে সে ভাস্কর্য শিল্পীই হতে চায়।

তুর্যর বাবা পলাশ সিংহ জানান, ছোটবেলা থেকেই তুর্যর ভাস্কর্য তৈরিতে ঝোঁক দেখে তিনি ছেলেকে এ কাজে তার সাধ্যমত সহায়তা করেন। কিন্তু তার সীমিত আয়ের কারণে সবসময় সবকিছু করে উঠতেও পারেন না বলে উল্লেখ করেন।

এলাকাবাসী মনে করেন, আর্থিক সহায়তা ও পৃষ্ঠপোষকতা পেলেই তুর্য হতে পারে দেশের সেরা ভাস্কর্য শিল্পী।

যশোর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে