Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বৃহস্পতিবার, ৯ জুলাই, ২০২০ , ২৪ আষাঢ় ১৪২৭

গড় রেটিং: 0/5 (0 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ১২-০১-২০১৩

‘আবার তোরা মানুষ হ’

ফারুক ওয়াসিফ


পোড়ার দেশে জীবন জিয়ে না। মরার দেশে ইনসাফ বা ন্যায়ও বাঁচে না। আজ বাংলাদেশে জীবিত ও মৃতের মধ্যে পার্থক্য এতটুকুই যে মৃতের যন্ত্রণা ও ভয়ের সমাপ্তি হয়েছে; জীবিতরা এখনো ভুগছে। সেমেটিক সৃষ্টিতত্ত্বে আমরা সবাই খুনির বংশধর। আদমের দুই সন্তানের একজন আরেকজনকে খুন করেছিল। নিঃসন্তান হাবিলকে খুন করার পর কাবিলের বংশধরেরাই পৃথিবী ভরিয়ে ফেলে। ধর্মীয় মিথে ভাইয়ের হাতে ভাই হত্যা মানবজাতির আদি পাপ। আর বাংলাদেশে বাস্তবিকই সেই আদি পাপের অভয়ারণ্য।


	‘আবার তোরা মানুষ হ’
পোড়ার দেশে জীবন জিয়ে না। মরার দেশে ইনসাফ বা ন্যায়ও বাঁচে না। আজ বাংলাদেশে জীবিত ও মৃতের মধ্যে পার্থক্য এতটুকুই যে মৃতের যন্ত্রণা ও ভয়ের সমাপ্তি হয়েছে; জীবিতরা এখনো ভুগছে। সেমেটিক সৃষ্টিতত্ত্বে আমরা সবাই খুনির বংশধর। আদমের দুই সন্তানের একজন আরেকজনকে খুন করেছিল। নিঃসন্তান হাবিলকে খুন করার পর কাবিলের বংশধরেরাই পৃথিবী ভরিয়ে ফেলে। ধর্মীয় মিথে ভাইয়ের হাতে ভাই হত্যা মানবজাতির আদি পাপ। আর বাংলাদেশে বাস্তবিকই সেই আদি পাপের অভয়ারণ্য।
 
শাহবাগে যারা বাসে পেট্রলবোমা ছুড়ে ঘরফেরত মানুষগুলোকে জ্বালিয়ে দিয়েছিল, তারা জানত মানুষগুলো নিরপরাধ। সারা দেশে যারা জানমালের ক্ষতি করছে, তারাও জানে, যারা ভুগছে তারা নিরীহ। একগুঁয়েমি করে খাসক্ষমতা ধরে রাখার খেসারত দিচ্ছে আম আদমি; তা সরকার মহাশয়ও জানে। ত্বকীকে যারা হত্যা করেছিল, তারাও নিশ্চিত ছিল ত্বকীর কোনো অপরাধ নেই। কোরবানির পশুকে নিদাগ নিখুঁতই হতে হবে, বলির পাঁঠা অবলাই হবে। তাই নিরীহকে হত্যা করা ছাড়া রাজনীতির দেব-দেবীদের ক্ষমতার পূজা কীভাবে হবে সমাপন?
 
কারও শাস্তি হয় না। গতবার আওয়ামী লীগের হরতালে গান পাউডার দিয়ে বাসের যাত্রীদের পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। এবার শাহবাগে বাসে পেট্রলবোমার আগুনে দগ্ধানো ১৯ জনের দুজন মারা গেছেন; অন্যরা মৃত্যুপথের দীর্ঘ অসহ্য যাত্রায় রওনা দিয়েছেন। গত নয় মাসে রাজনৈতিক সহিংসতায় নিহত হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন শ মানুষ। এসব মানুষের জীবন ছিল, সেই জীবনে প্রেম-ভালোবাসা-স্নেহ-মমতায় জড়ানো আরও অনেকে মিলে একেকটা পৃথিবী ছিল। একেকটি অপমৃত্যু তাই একেকটি ব্যক্তিগত পৃথিবীর ধ্বংস। একাত্তরের পর গণহত্যার শহীদদের স্বজনদের বিরাট এক জনগোষ্ঠী ছিল। তারা কখনোই ভুলত না যে কী করা হয়েছিল তাদের স্বজনদের ওপর।
 
স্বাধীনতার ৪২ বছরে রাজনৈতিক নাশকতা এবং মুনাফার নিষ্ঠুরতার শিকার হওয়া মানুষের মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয়েছে। তারা ভুলবে না সহজে স্বজনদের মর্মান্তিক মৃত্যুযন্ত্রণার স্মৃতি। তাদের আর বাদবাকিদের মধ্যে ঝুলে থাকবেই গুমোট বেদনার কালো পর্দা। তাদের কাটা ঘায়ে তারপর বিচার না হওয়ার লবণ পড়েছে বারবার। রানা প্লাজার আসামিদের দুর্বল মামলা দিয়ে বাঁচিয়ে দেওয়া হচ্ছে, জামিন দেওয়া হচ্ছে। তাজরীনের দেলোয়ার হোসেনসহ অন্য অভিযুক্তদের বিচার এখনো শুরুই হয়নি। এরই মধ্যে মেধাবী কিশোর ত্বকী হত্যার দায়ে অভিযুক্ত নারায়ণগঞ্জের শামীম ওসমান প্রার্থী হয়েছেন। তাঁর দল আওয়ামী লীগও তাঁকে মনোনয়ন দিয়ে ধন্য হয়েছে। শামীম ওসমান যদি মনোনয়ন পান, তাহলে ত্বকীর মায়ের মতো এ দেশের প্রত্যেক মায়ের বুক কেঁপে উঠবে না? পুত্র হত্যার বিচারের দাবিতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আন্দোলন করে যাওয়া রফিউর রাব্বির পুরোনো ক্ষত থেকে নতুন করে রক্ত ঝরবে না?
 
নিহত-নির্যাতিতদের সংখ্যা যত বাড়ছে, খুনি-নির্যাতকদের দায়মুক্তির সংখ্যাও তেমনই বাড়ছে। খুনিদের দম্ভ যত বাড়ছে, ততই বাড়ছে আতঙ্ক। আমরা যারা বাসযাত্রী, আমরা যারা হরতাল-অবরোধে জীবিকার জন্য বাইরে বেরোনোর মতো সাহসী, আমরা তাহলে কী করব? শিশু-কিশোরদের দিয়ে ককটেল ফোটানো হচ্ছে। স্তরে স্তরে পুলিশ-বিজিবির পাহারায় সরকার নিজেকে লুকাতে ব্যস্ত। সন্ধ্যার পর বাড়ছে ছিনতাই-রাহাজানি। সরকার আত্মরক্ষায় ব্যস্ত থাকায়, সব রকম অপরাধীরা ঝোপ বুঝে কোপ মারছে।
 
এখনই তো সুযোগ হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-মন্দির দখলের ফন্দিফিকির সাজানো। তাই তাদের মন্দির ও বাড়িতে চলছে হামলা। কেউ থামাতে পারছে না। উন্মুক্ত বাংলাদেশে প্রকাশ্যে মানবতার মৃত্যু ঘটছে। সব প্রবাদ, সত্য বচন মিথ্যা হয়ে গেছে। অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে, তব ঘৃণা যেন তৃণসমে আর দহে না! এখানে খুনিদের রক্ষা করে ‘ক্ষমা’ করে সরকার, আর তৃণসম দহে সাধারণ মানুষ।
 
গণতন্ত্র মানে শুধু ভোটাধিকার নয়। গণতন্ত্র মানে সব নাগরিকের সমান অধিকার। সব নাগরিকের ব্যক্তিগত জানমাল রক্ষার নিশ্চয়তা। সব নাগরিকের মতপ্রকাশ ও বিশ্বাস চর্চা করার স্বাধীনতা। এই দুই অধিকারই আজ আক্রান্ত। অনিরাপত্তার দিক থেকে বাংলাদেশে এখন সংখ্যাগুরু সংখ্যালঘু উভয়ই হুমকিতে। বেশির ভাগ মানুষ যখন ত্রাসিত জীবন পার করছে, তখন লুটেরা-দুর্বৃত্তরা দেশে বা বিদেশে সম্পদ আর পরিবার নিয়ে নিরাপদেই আছেন। দেশ তাঁদের জমিদারি, বিদেশ তাঁদের ‘হোম, সুইট হোম’!
 
এক অদ্ভুত অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। যাঁরা রাজনৈতিক নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন, তাঁদের ডাকা কর্মসূচির নামেই আবার জনগণ নিপীড়িত হচ্ছে। কেউ সংবিধান পোড়াচ্ছেন, কেউ জীবন পোড়াচ্ছেন। দুই পক্ষেরই বলবার কথা আছে, যুক্তি আছে। দুই পক্ষের বুদ্ধিজীবী ও প্রচারকেরা তর্কযুদ্ধে পরস্পরকে কতল করছেন। এত যুক্তি, এত বুদ্ধি, এত সুশীলতা; কিন্তু কোথায় সত্য, কোথায় ন্যায়, কোথায় মানবতা? নাই নাই নাই। যে যুক্তিতে মুক্তির কথা নেই, যে মুক্তির বিজ্ঞাপনে সত্যের সাহস নেই, যে সাহসী ভাষণে ভরসাজাগানো দিশা নেই; তা অর্থহীন। দুই দল যেন সেই দুই পাহাড়ি ছাগল, পরস্পরকে গুঁতাতে এতই ব্যস্ত যে দুজনই যে পাহাড়ের ঢাল বেয়ে খাদের দিকে গড়াচ্ছে, তার হুঁশ নেই। আপনারা বেহুঁশ হতে পারেন, আপনাদের ভারত-আমেরিকা থাকতে পারে, আপনাদের রাজকীয় উত্তরাধিকার নিয়ে স্বপ্ন থাকতে পারে; কিন্তু আমাদের তো একটাই জীবন, আমাদের তো একটাই দেশ, আমাদের তো একটাই চাওয়া: স্বাধীন-সার্বভৌম-সচ্ছল শান্তির বাংলাদেশ।
 
আওয়ামী লীগ-সমর্থকদের কণ্ঠে শোনা যায়, এটা দ্বিতীয় মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের সময় তো জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানেরা সবকিছুর সামনে ছিল; আজ দেখছি মঞ্চ ও টিভির পর্দা যাঁরা কাঁপাচ্ছেন, তাঁদের অনেককেই শ্রদ্ধা-ভক্তি করা কঠিন। আর দেশের মানুষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ কীভাবে মুক্তিযুদ্ধ? বিএনপির সমর্থকদের কণ্ঠে শোনা যায়, এটা গণতন্ত্রের নূর হোসেনীয় মুহূর্ত: যখন বুকে-পিঠে লিখে রাখতে হবে, ‘গণতন্ত্র মুক্তি পাক’। আজ নূর হোসেন আর ডা. মিলনের জননীরা পত্রিকায়-টিভি চ্যানেলে হাহাকার করছেন, ফরিয়াদ করছেন: গণতন্ত্র তো মুক্তি পেল না! চিহ্নিত স্বৈরাচার আজ গণতান্ত্রিক সরকারের কোলে বসে দোল খাচ্ছে। গণতন্ত্রের জন্য কোনো নূর হোসেনীয় প্রেরণা জাগাতে পারেনি বিএনপি, পেরেছে কেবল বোমাবাজ পাঠাতে। দুই জোটের লড়াইয়ে যে জিতুক, এটা নিশ্চিত, কোনোভাবেই গণতন্ত্র জিতবে না, বাংলাদেশ জিতবে না।
 
বাংলাদেশে এখন জনগণ নেই, নাগরিক নেই, মানুষ নেই। তাদের ‘নেই’ করে দেওয়া হয়েছে। আমাদের শ্রমিকেরা শ্রমদাস, দেশের পোশাক কারখানায় বা বিদেশে দাসশ্রমের দামে তাদের বেচে ডলার অর্জন করে এই রাষ্ট্র। দাসশ্রমনির্ভর রাষ্ট্র কখনো গণতান্ত্রিক হয় না। সংবিধান এখানে ক্ষমতাবানের মর্জিমাফিক বদলায়। নাগরিকের অধিকার দর্জির কাঁচির হাতে ইচ্ছামতো কাটছাঁট হয়। তাদের মনে করা হয় প্রজা বা হোমো সাসের। রোমান সাম্রাজ্যের আইনে একধরনের মানুষের আইনি মর্যাদা ছিল ‘হোমো সাসের’। তারা দাস ছিল না, আবার পূর্ণ মর্যাদার নাগরিকও ছিল না। এদের হত্যায় অপরাধ হতো না, কারণ, এরা প্রাণীসুলভ। এদের নিয়ে যা খুশি তা-ই করা চলত। আমাদের নিয়েও কি তাই করা হচ্ছে না?
 
যেমন জনগণ তেমন শাসকই তারা পায়। ফরাসি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী আলেক্সেই ডি তকুইভিল বলেছিলেন, দীর্ঘদিন যন্ত্রণায় ভুগতে থাকা মানুষ বিকল্প পাওয়ামাত্রই সমস্যাগুলোকে অসহনীয় মনে করতে থাকে এবং ভাগ্য বদলানোর জন্য কোমর কষে নামে। আমাদের হয়েছে উল্টোটা। দীর্ঘদিন অনাচার সহ্য করতে করতে পরিবর্তনের আশার ধূলিসাৎ দশা দেখতে দেখতে আমরা এখন সব সওয়া মহাশয়ে পরিণত হয়েছি। আমরা না বদলালে আমাদের নেতারা বদলাবে না।
 
আমরা বাসযাত্রীরাও মানুষ, আমাদের অনেকেরই ঘরে ঘরে ত্বকীর মতো সন্তান আছে, তাকে হারানোর ভয় ও হুমকি আছে। আমাদের চার-পাঁচ কোটি তরুণ-তরুণীর জীবনের শ্রেষ্ঠ সময় নষ্ট হচ্ছে। এই রাজনৈতিক পরিবেশেমানুষসম্মানের সঙ্গে সঙ্গে আত্মবিশ্বাসও হারায়। শামীম ওসমানের মতো লোকের ভয়ে আমাদের লোকালয় সংখ্যালঘুর মতো কোণঠাসা। আমাদের এই দেশটাকে আমরা রানা প্লাজা হতে দিতে পারি না। রাস্তায় রাস্তায় চলন্ত তাজরীন আমরা মানব না। আমরা মানুষ ছিলাম, আবার আমরা অমানুষদের ঠেকিয়ে মানুষ হতে চাই।
ফারুক ওয়াসিফ: সাংবাদিক ও লেখক।
bagharu@gmail.com

মুক্তমঞ্চ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে