Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ৭ জুলাই, ২০২০ , ২৩ আষাঢ় ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (5 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৫-১৪-২০২০

বীরগঞ্জে দুই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ

বীরগঞ্জে দুই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ

দিনাজপুর, ১৪ মে - দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ২ নম্বর পলাশবাড়ী ইউনিয়নে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির দুইজন ডিলারের বিরুদ্ধে চাল বিতরণ না করে আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। তারা হলেন পলাশবাড়ী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাজমুল হোসেন বাহাদুর ও ইউনিয়ন যুবলীগের সদস্য মো. রহিমুল ইসলাম। তারা দুজনই পলাতক রয়েছেন।

অভিযোগ রয়েছে, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল কার্ডধারীদের মাঝে বিতরণ না করে ২ নম্বর পলাশবাড়ী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের ডিলার মো. নাজমুল হোসেন বাহাদুর ও ২ নম্বর ওয়ার্ডের ডিলার রহিমুল ইসলাম তা আত্মসাৎ করে আসছিলেন।

গত মঙ্গলবার ডিলার মো. নাজমুল হোসেন বাহাদুরের বিরুদ্ধে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ করেন কার্ডধারী মহিলা ইউপি সদস্য মোছা. পারুল বেগম।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, বৈরবাড়ী গ্রামের বিরেন অধিকারীর ছেলে ধীরেন্দ্রনাথ অধিকারী (কার্ড নম্বর-৪২৯), ধূখোল মহন্তর ছেলে ফাগুনা মহন্ত (কার্ড নম্বর-৪৩০), মৃত. সচিন্দ্রের ছেলে রমেশ (কার্ড নম্বর-৪৩৪) ও মহিলা ইউপি সদস্য পারুল বেগমের (কার্ড নম্বর-৪৫৫) চাল না দিয়ে দীর্ঘদিন থেকে আত্মসাৎ করে আসছেন ডিলার মো. নাজমুল হোসেন।

অভিযোগ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়ামিন হোসেন তাৎক্ষণিকভাবে বীরগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রমিজ আলমকে ঘটনা পরিদর্শনে পাঠান। এ সময় তিনি ঘটনা স্থলে গিয়ে অভিযোগকারীদের অভিযোগ শোনেন। পরে ডিলার মো. নাজমুল হোসেন বাহাদুরকে ডাকা হলে তিনি পালিয়ে যান।

একই অভিযোগ রয়েছে ২ নম্বর ওয়ার্ডের ডিলার মো. রহিমুল ইসলামের বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে বিমল চন্দ্র সরকার, যতিশ চন্দ্র, জগদীশ সরকার ও লাল বানু নামে চারজন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। তাদের অভিযোগ, তাদের নামে কার্ড আছে কিন্তু তারা কোনো দিনই চাল পাননি। তাদের চারগুলো ডিলার রহিমুল আত্মসাৎ করতেন।

যেসব কার্ডের চাল আত্মসাৎ করা হতো তার মধ্যে কিছু কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। তবে কার্ডধারীরা জানতেনই যে তাদের নামে কার্ড রয়েছে এবং চাল উত্তোলন করা হতো।

এ ব্যাপারে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়ামিন হোসেন বলেন, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির দুইজন ডিলার নাজমুল হোসেন বাহাদুর ও রহিমুল ইসলামের বিরুদ্ধে ১০-১২ জন উপকারভোগী অভিযোগ করেছেন। অভিযোগকারীরা জানান, তাদের নামে কার্ড বরাদ্দ আছে। ইতোমধ্যে কয়েকটি কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। এসব কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি নিজেই বুধবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। দুইজন ডিলারই পলাতক রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ১৪ মে

দিনাজপুর

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে