Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০ , ২১ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (21 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-১২-২০২০

বিশ্বে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ, শঙ্কা বাড়ছে দ্বিতীয় দফা মহামারীর

বিশ্বে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ, শঙ্কা বাড়ছে দ্বিতীয় দফা মহামারীর

বিশ্বের দেশে দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ যে হারে বাড়তে দেখা যাচ্ছে, তাতে দেশগুলোর লকডাউন শিথিলের পদক্ষেপ এবং ব্যবসা-বাণিজ্য আবার চালুর চেষ্টা আরেক দফা মহামারীর ধাক্কায় মুখ থুবড়ে পড়তে পারে বলে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
বিশ্বের কয়েকটি দেশ এবং অঞ্চলে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সর্বোচ্চ হারের চিত্র:

ভারত
দেশটি মার্চে শুরু করা লকডাউন থেকে ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে।এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণও।

গত এক সপ্তাহে ভারত মোটামুটিভাবে ১০ হাজার মানুষের করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ার খবর জানিয়েছে।

কোভিড-১৯ শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় গত মঙ্গলবারই চীনের উহান শহরকে ছাড়িয়ে গেছে ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের মুম্বাই শহর।

প্রায় ১ লাখ শনাক্ত রোগী নিয়ে মহারাষ্ট্র এখন চীনের মোট ভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যাও ছাড়িয়ে গেছে।

পাকিস্তান
দেশটিতে অর্থনীতি সচল করতে গত ৯ মে লকডাউনের বিধিনিষেধ তুলে নেওয়ার পর থেকেই ভাইরাস সংক্রমণ বেড়েছে।

জুনের শুরু থেকে পাকিস্তানে সংক্রমণ রেকর্ড সংখ্যক বেড়েছে। ভাইরাস পরীক্ষা বাড়ার কারণেও বেশি রোগী শনাক্ত হচ্ছে।

দৈনিক ২৩ হাজার জনের ভাইরাস পরীক্ষায় গত ১০ দিনে ৫ জনের মধ্যে একের বেশি জনের ভাইরাস পজিটিভ পাওয়া গেছে।

সরকারি হিসাবে, লকডাউন তোলার আগে ভাইরাস পরীক্ষায় আনুমানিক ১০ জনে ১ জনের পজিটিভ পাওয়া যেত।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এ সপ্তাহে পাকিস্তানকে সুনির্দিষ্ট এলাকা চিহ্নিত করে আবার লকডাউন জারির পরামর্শ দিয়েছে।ডব্লিউএইচও’র শর্ত মেনে দেশটি বিধিনিষেধ তোলেনি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

ইন্দোনেশিয়া
বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম জনসংখ্যার এই দেশেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছে।বুধবার দেশটিতে ১,২৪১ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে।

দৈনিক হিসাবে দেশটিতে দ্বিতীয়দিনের মত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এটিই সবচেয়ে বেশি।বৃহস্পতিবার দেশটিতে শনাক্ত হয়েছে আরো ৯৭৯ জন।

ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় গত সপ্তাহ থেকেই বিধিনিষেধ শিথিল হতে শুরু করেছে। এ সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে অভ্যন্তরীন বিমান চলাচলও।

দক্ষিণ কোরিয়া-সিঙ্গাপুর
মহামারীর প্রথম দিকে দক্ষিণ কোরিয়া এবং সিঙ্গাপুর ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সফল হয়ে বিশ্বের মনোযোগ কাড়লেও সম্প্রতি কয়েকমাসে আবার দেশদুটিতে নতুন করে সংক্রমণ বাড়তে দেখা যাচ্ছে।

ভাইরাসটি কত সহজে ফিরে আসতে পারে এ থেকেই তা বোঝা যায়।

মে মাসের প্রথম দিকে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলের ইতেওন এলাকার নাইট ক্লাব এবং বারগুলোতে যাওয়া এক যুবকের কাছ থেকে ভাইরাসের গুচ্ছ সংক্রমণ ধরা পড়ে।

ফলে দ্রুতই সরকারকে আবার বেশ কিছু নাইটক্লাব এবং বার বন্ধ করে দিতে হয়েছে। সেইসঙ্গে স্কুল খুলে দেওয়ার পরিকল্পনাও পিছিয়ে দিতে হয়।

সিউলে বেশ কয়েক দফায় গুচ্ছ সংক্রমণ ধরা পড়ার পর দক্ষিণ কোরিয়ায় এখন দৈনিক সংক্রমণ ঘটছে ১০ জনেরও বেশি মানুষের।

সংক্রমণ এক অঙ্কে নেমে না আসা পর্যন্ত আরো বেশি প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেওয়া এবং স্যানিটেশন নির্দেশিকা মেনে চলা হবে বলে শুক্রবার জানিয়েছে সরকার।

ওদিকে, সিঙ্গাপুরে অভিবাসী শ্রমিকদের ডরমিটরিতে সংক্রমণের ব্যাপক হারের কারণে দেশটিতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে শনাক্ত হওয়া আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

দেশটি জুনের প্রথমদিকেই স্কুল খুলেছে, ব্যবসা-বাণিজ্যও চালু করেছে।

তাছাড়া, নতুন সংক্রমিতদের বেশিরভাগই উপসর্গহীন হওয়ার কারণে সিঙ্গাপুর ধীরে ধীরে আরো বিধিনিষেধ শিথিল করবে বলে জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র
টেক্সাস এবং অ্যারিজোনাসহ যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধডজন রাজ্যই বাড়তে থাকা ভাইরাস সংক্রমণ মোকাবেলায় হিমশিম খাচ্ছে।

রোগীতে ভরে যাচ্ছে হাসপাতাল, অনেক রোগীর ভাগ্যে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) শয্যাও জুটছে না।

বহু রাজ্যেই বাড়ছে কোভিড-১৯ এ মানুষের মৃত্যু।গত মাসের শেষ দিকে মেমোরিয়াল ডে উদযাপনে অনেক মার্কিনিই সাগরতীর এবং লেকে যাওয়ায় দ্বিতীয় দফায় ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে।

সেই শঙ্কা আরো বাড়িয়েছে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যা নিয়ে দেশজুড়ে শুরু হওয়া বিক্ষোভ-প্রতিবাদ।

রাশিয়া
বিশ্বে শনাক্ত রোগীর সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় বৃহস্পতিবারও নতুন ৮,৭৭৯ জনের সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

ব্যাপকভাবে ভাইরাস পরীক্ষা হওয়ার কারণে রোগীও অনেক বেশি ধরা পড়ছে বলে জানিয়েছে দেশটি।

রাশিয়ার রাজধানী মস্কোয় এখনো দৈনিক শনাক্ত হওয়া আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজারের বেশি। তারপরও দু’মাসের বেশি সময় ধরে জারি থাকা লকডাউন সদ্যই শিথিল করেছে দেশটি।

ব্রাজিল
দেশটিতে বৃহস্পতিবার নতুন শনাক্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৩০,৪১২। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়েছে ৮ লাখ।

সংক্রমণের হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের পরই ব্রাজিলের অবস্থান।দেশটির বড় দুটি শহরে বৃহস্পতিবার দোকান-পাট খুলেছে।যেখানে এখনও সংক্রমণ বাড়তির দিকে।

এর একদিন আগেই জনবহুল সাও পাওলোতে দ্বিতীয় দিনের মতো কোভিড-১৯ এ রেকর্ড সংখ্যক মানুষের মৃত্যুর খবর এসেছে।

ইউরোপ
‘ইউরোপিয়ান সেন্টার ফর ডিজিজ প্রিভেনশন এন্ড কন্ট্রোল’ এর বিশ্লেষকদের মতে, পোল্যান্ড এবং সুইডেন বাদে ইউরোপের সবখানেই সদ্য করোনাভাইরাস মহামারী প্রথম ধাপ পেরিয়েছে।

কিন্তু সেখানেও করোনাভাইরাস মহামারী দ্বিতীয় ধাপে প্রকট হয়ে উঠতে পারে এবং লকডাউনের প্রয়োজন আবারও পড়তে পারে বলে শঙ্কা আছে।

ইউরোপে যুক্তরাজ্য করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত হয়েছে। বুধবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সংক্রমণের হার নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই আছে বলে জানালেও বিধিনিষেধ আবার আরোপ করা হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন।

তাছাড়া, যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর পর থেকে ইউরোপের বড় বড় শহরগুলোতে সম্প্রতি কয়েকদিনে লাখো মানুষ যে বর্ণবাদ বিরোধী বিক্ষোভ করেছে তাতে অচিরেই মহামারী দ্বিতীয় ধাপে প্রকট হয়ে উঠতে পারে বলে শঙ্কিত বিশেষজ্ঞরা।

আর/০৮:১৪/১২ জুন

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে