Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ , ১২ আশ্বিন ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.0/5 (8 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-১৫-২০২০

৫৮৪ জেলের চাল আত্মসাৎ, জামিন পাননি আরশিনগরের চেয়ারম্যান

৫৮৪ জেলের চাল আত্মসাৎ, জামিন পাননি আরশিনগরের চেয়ারম্যান

ঢাকা, ১৬ জুন - জেলেদের ভিজিএফের চাল আত্মসাতের মামলায় জামিন পাননি শরীয়তপুরের আরশিনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুদ্দোজা রতন। তবে ওই ইউপির সচিবকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

সোমবার (১৫ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের অনলাইন বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে রাষ্ট্র পক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী শামসুন নাহার কনা। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শাহীন আহমেদ। জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী নাসরিন ফেরদৌস।

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার আরশিনগর ইউনিয়নের জেলেদের ভিজিএফের ৩৫ বস্তা চাল আত্মসাৎ-এর অভিযোগে চেয়ারম্যান সামসুদ্দোহা রতন এবং ওই ইউনিয়ন পরিষদের সচিব জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে দুদক মামলা দায়ের করেছে। বর্তমানে ওই ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব আটক রয়েছেন।

ফরিদপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মো. আবু সাঈদ বাদি হয়ে পেনাল কোডের ৪০৯/৪২০/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের ২নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

আর মামলাটি রেকর্ড করেন ফরিদপুর সমন্বিত জেলা কার্যালয় দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক কমলেশ মন্ডল। চেয়ারম্যান ও সচিব দু’জনে একত্রে অনলাইন বেঞ্চে জামিন আবেদন করেছিলেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, চেয়ারম্যান ও সচিব পরস্পর যোগসাজসে অনিয়ম ও প্রতারণার আশ্রয় গ্রহণ করে ইউনিয়নের কার্ডধারী মৎসজীবীদের মধ্যে ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম করে ৩৫ বস্তা চাউল (এক হাজার পঞ্চাশ) কেজি চাউল যার মূল্য আনুমানিক পয়ঁতাল্লিশ হাজার একশত পঞ্চাশ টাকা আত্মসাৎ করে। যা পেনাল কোডের ৪০৯/৪২০/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের ২নং দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

উল্লেখ্য, গত ৭ মে বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার আরশিনগর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ৩৫ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়। এ সময় ওই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও সচিবকে আটক করে পুলিশ।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আব্দুস সামাদ বলেন, ভেদরগঞ্জ উপজেলায় জাটকা ইলিশ আহরণ বন্ধ থাকায় ছয় হাজার ৪৭২ জেলেকে ভিজিএফের চাল দেয়া হয়। এর মধ্যে আরশিনগর ইউনিয়নের ৫৮৪ জন জেলের প্রত্যেকের জন্য ৪০ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ১৬ জুন

আইন-আদালত

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে