Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০ , ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 2.8/5 (18 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-১৯-২০২০

মানবিকতার উল্টো রূপ দেখছেন অ্যাম্বুলেন্স চালকরা

মানবিকতার উল্টো রূপ দেখছেন অ্যাম্বুলেন্স চালকরা

খাগড়াছড়ি, ১৯ জুন- প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে বাবা যখন সন্তানের পাশে দাঁড়াচ্ছেন না, সন্তান যখন মাকে ফেলে যাচ্ছে রাস্তায় তখন রোগী নিয়ে ছুটছেন অ্যাম্বুলেন্স চালকরা। করোনাকালে রোগীদের কাছে তারাই প্রথম আসছেন ঈশ্বরের দূত হয়ে।

অনেক সময় রোগীর সঙ্গে কোনো আত্মীয়-স্বজনও থাকে না, তখন অ্যাম্বুলেন্স চালকরাই তাদের নিয়ে ছোটাছুটি করেন। এসব রোগীকে গাড়িতে তোলা এবং নামানোর কাজও করতে হয় তাদের। এমনকি হাসপাতালে ভর্তি থেকে শুরু করে ওয়ার্ডে পৌঁছে দেয়া পর্যন্ত সব দায়িত্বই পালন করতে হয় অ্যাম্বুলেন্স চালকদের।

জাগো নিউজের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথাই জানান খাগড়াছড়ির প্রাইভেট অ্যাম্বুলেন্স চালক মো. আলমগীর হোসেন। ৮ বছর ধরে রয়েছেন এ পেশায়। এ পেশায় থাকার সুযোগে পেয়েছেন অনেক চেনা-অচেনা মানুষের ভালোবাসা।

করোনাকালে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে সাধারণ রোগী নিয়ে গেলেও আগের মতো আন্তরিকতা নিয়ে হাসপাতালের কেউ এগিয়ে আসে না এমন অভিযোগ করে অ্যাম্বুলেন্স চালক মো. আলমগীর হোসেন বলেন, বর্তমানে তাদের বাড়তি বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে। হাসপাতালে পৌঁছলে আগেই রোগীর জ্বর, সর্দি বা কাশিসহ করোনার উপসর্গ আছে কিনা জানতে চায়। তখন নিজেকে খুব অসহায় মনে হয়। তারপরও শুধু টাকার জন্য নয়, মানবিক কারণেই তারা রোগী নিয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ছুটছেন।

মানবসেবা করলেও করোনাকালে মানবিকতার উল্টো রূপ দেখতে হচ্ছে এসব অ্যাম্বুলেন্স চালককে। এমন অভিযোগ করে অ্যাম্বুলেন্স চালক মো. আলমগীর হোসেন বলেন, হাসপাতাল থেকে ফিরে বাড়িতে গেলে প্রতিবেশীদের বিরূপ মন্তব্য শুনতে হয়। কোথায় গেছি, কোথা থেকে এসেছি, করোনা রোগীদের সংস্পর্শে ছিলাম কিনা এমন সব প্রশ্ন করতে থাকে। আশপাশের লোকজন আমার কাছ থেকে দূরে সরে যায়। ফলে বাড়িতে ফিরতেই যেন সংকোচবোধ হয়।

তারপরও সামাজিক দায়বদ্ধতা ও মানবতার খাতিরে এসব অ্যাম্বুলেন্স চালক মানুষের সেবায় নিয়োজিত। তবে তারা নিজেদের সুরক্ষা পোশাকের অভাবে ভীত। এমনটাই জানান খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গার অ্যাম্বুলেন্স চালক মো. রুহুল আমিন। প্রতি মূহুর্তে নিজেদের প্রাণের ঝুঁকি থাকলেও বরাবরই উপেক্ষিত অ্যাম্বুলেন্স চালকরা। করোনাকালে তারা ঝুঁকিপূর্ণ রোগী পরিবহন করলেও তাদের সুরক্ষার জন্য নেই কোনো ধরনের পিপিই বা মাস্কসহ সুরক্ষা সরঞ্জাম। ফলে সবসময়ই করোনা আতঙ্ক তাড়া করে বেড়ায় তাদের।

সূত্র: জাগোনিউজ

আর/০৮:১৪/১৯ জুন

খাগড়াছড়ি

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে