Deshe Bideshe

DESHEBIDESHE

ইউনিজয়
ফনেটিক
English
টরন্টো, বুধবার, ৫ আগস্ট, ২০২০ , ২১ শ্রাবণ ১৪২৭

গড় রেটিং: 3.4/5 (10 টি ভোট গৃহিত হয়েছে)

আপডেট : ০৬-২৩-২০১৪

১০ টি কারণে বেছে নিতে পারেন একজন পশু চিকিৎসকের পেশা

আজকাল অনেকেই ভ্যাটেনারি সায়েন্সে পড়াশুনা করছেন। কিন্তু তারপরও যারা বিষয়টি সম্পর্কে জানেন না তারা অনেকেই এই বিষয়টিকে এখনও ভালো চোখে দেখেন না। তারা ভাবেন এত পড়াশুনা করে "গরু-ছাগলের" ডাক্তার হওয়ার কোনো মানেই হয় না। কিন্তু এই দিকে ক্যারিয়ার গড়ার বেশ কিছু শক্ত কারণ আছে যা হয়ত আপনি জানেন না। তাই জেনে নিন এমন ১০ টি কারণ।

১০ টি কারণে বেছে নিতে পারেন একজন পশু চিকিৎসকের পেশা

১. প্রাণীজগতকে সাহায্য করা :
মনীষিদের অনেক বিখ্যাত একটি কথা আছে- জীবে দয়া কওে যেই জন সেই সেবিছে ঈশ্বর। তাই প্রাণী জগতের সাথে এক আাত্মিক বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার এক উন্নত উপায় হল এই পশু চিকিৎসক হওয়া।

২. প্রতিদিনকে নতুন করে দেখা :
অন্যান্য পেশাগুলোতে যেমন প্রতিদিনই একইরকম মনে হয় কিন্তু এই পেশায় প্রতিটি দিনকে আলাদা মনে হয়। প্রতিদিন বিভিন্ন পশুর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গবেষণা বা চিকিৎসা করার সুযোগ থাকছে। তাই আপনার দিনগুলোকে চাইলে আপনি নিজেই সাজিয়ে নিতে পারেন।

৩. আকর্ষণীয় বেতন :
পশু চিকিৎসকদের একটি আকর্ষণীয় বেতনের সুযোগ রয়েছে। তারা অন্যান্য যেকোনো চাকরির তুলনায় বহুগুণে বেশি বেতন পেয়ে থাকেন। তাদের বেতন মোটামুটিভাবে ৫০ হাজার থেকে শুরু হয়ে থাকে। পাশাপাশি অন্যান্য নানা ধরনের সুযোগ সুবিধা থাকে। সুতরাং এসব বিবেচনায় আপনি খুব স্বাভাবিকভাবেই চাইবেন এই ক্যারিয়ারে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে।

৪. সুস্থ সমাজ গড়ার সুযোগ :
পশু চিকিৎসকরা বিভিন্ন গ্রাম্য এলাকায় পশুদের চিকিৎসা করে থাকেন। এতে করে তারা গ্রামীণ সমাজকে সুস্থ মানসিকতায় গড়ে তোলার সুযোগ পান। তাদের এই বিষয়ে ব্যাপক শিক্ষা দিতে পারেন। ফলে একটি সুস্থ এবং আধুনিক সমাজ গড়ার সুযোগ এই পশু চিকিৎসকরা পেয়ে থাকেন।

৫. সমস্যা সমাধানের দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারেন :
বিভিন্ন ধরনের সমস্যা বিভিন্ন গ্রামীণ জনসমাজে হয়ে থাকে। ফলে তারা এই সমস্যাগুলোর সমাধানে তাদের দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারেন। তারা গ্রাম্য সমাজের এক ধরনের প্রধানের ভূমিকা পালনের সুযোগ পেয়ে থাকেন।

৬. নিজেই নিজের কর্তা :
অন্যান্য যেকোনো চাকরিক্ষেত্রে দেখা যায় অন্য একজনের অধীনে আপনাকে কাজ করতে হয়। ফলে বিভিন্ন ধরনের আচরণের শিকার হতে হবে আপনাকে। কিন্তু এই পেশাতে আপনার উর্ধ্বতন কর্মকর্তা আপনি নিজেই। ফলে আপনি ইচ্ছামত আপনার দক্ষতা দিয়ে জনগণের সেবা করে যেতে পারবেন।

৭. সারাজীবন শিখতে পারবেন :
পশু চিকিৎসক হওয়া এমন একটি ক্যারিয়ার যেখানে আপনি চাইলে সারাটি জীবন জ্ঞান আহরণের মধ্যে কাটিয়ে দিতে পারবেন। এই বিষয়ের উপর দেশের বাহিরে অনেক স্কলারশিপের সুযোগ সুবিধাও রয়েছে। যেগুলোতে অ্যাপ্লাই করে জীবনে আরও অনেক বেশি দক্ষ হয়ে ওঠার সুযোগ থাকছে।

৮. বিভিন্ন চাকরির সুযোগ :
আপনি চাইলে ভ্যাটেনারি সাইন্সে পড়াশুনা করে বিভিন্ন অর্গানাইজেশনে বিভিন্ন ক্যারিয়ারের সুযোগ নিতে পারবেন। যেমন ধরুন ভ্যাটেনারি ফার্মাসিটিক্যালস কোম্পানি, ফিড কোম্পানি, উইল্ড লাইফ এজেন্সিজ, গবেষণাগারে, প্রাতিষ্ঠানিক প্রতিষ্ঠানে অথবা মিলিটারিতেও আপনি বিভিন্ন পদে ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেন। এছাড়া আপনি ব্যক্তিগতভাবেও অনেক কাজ করতে পারবেন।

৯. অন্যান্য প্রাণী ভালোবাসে এমন ব্যক্তিদের সাথে কাজ করার সুযোগ :
প্রানীদের ভালোবাসেন এমন ব্যক্তি এই পৃথিবীতে অনেক আছেন। তারা মনের দিক থেকে অনেক নরম আর দয়ালু হয়ে থাকেন। এই ধরনের কিছু ভালো মানুষগুলোর সাথে পশু চিকিৎসকরা কাজ করার সুযোগ পাবেন। ফলে সামাজিক বন্ধন দৃঢ় হবে।

১০. এটি প্রাণীজগৎ বিষয়ক স্বপ্নের পেশা :
সামাজিকতা, অর্থনৈতিক অবস্থা সব মিলিয়েই এটি প্রাণীজগৎ বিষয়ক একটি স্বপ্নের পেশা। কেননা এই পেশায় থেকে আপনি সব ধরনের সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকবেন। বলা হয়ে থাকে একজন মানুষের ডাক্তারের চেয়েও পশুর ডাক্তারের চাহিদা আমাদের সমাজে অনেক বেশি।

 

জানা-অজানা

আরও সংবাদ

Bangla Newspaper, Bengali News Paper, Bangla News, Bangladesh News, Latest News of Bangladesh, All Bangla News, Bangladesh News 24, Bangladesh Online Newspaper
উপরে